• শনিবার ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ ২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • দুপুর ১২:১৪

কেঁচো সার উৎপাদনে স্বাবলম্বী তরুণ কৃষক রেজাউল

১৯ জানুয়ারি, ২০২৪ অপরাহ্ণ ১১:৩৮ ১৪২ বার দেখা হয়েছে

ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলা কৃষি অফিসের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ নিয়ে ভার্মি কম্পোস্ট সার (কেঁচো সার) উৎপাদনে মনোনিবেশ করেন তরুন উদ্যোক্তা মোঃ রেজাউল। কৃষক রেজাউল নলছিটি উপজেলার দপদপিয়া এলাকার বাসিন্দা। তিনি সার উৎপাদন করে সফল হয়ে এখন স্বাবলম্বী হয়েছেন।

কৃষক রেজাউল বলেন, নলছিটি কৃষি অফিসের সহযোগীতায় ২০২০ সালে এসএসিপি প্রকল্পের  একটি প্রদর্শনী দিয়ে ভার্মি কম্পোস্ট উৎপাদন শুরু করি, সেই সময় প্রথমে ৬০০ টাকার বিক্রি করি, এর পর থেকে আমার পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি। এখন প্রতি মণ সার ৫০০-৬০০ টাকা দরে বিক্রি করি। প্রতি কেজি কেঁচোর দাম ৮০০-১০০০ টাকা দরে বিক্রি করছি। 

এ সার উৎপাদন প্রক্রিয়া সম্পর্কে রেজাউল বলেন, এলাকায় ঘুরে ঘুরে মানুষের গরুর গোয়াল ঘর থেকে গোবর সংগ্রহ করি। এরপর গোবর ২০-২৫ দিন একস্থানে গচ্ছিত রেখে দেই। তারপরে হাউজ ও চাড়িতে দেওয়া হয়। এরপর গোবরের মধ্যে কেঁচো ছেড়ে দিতে হয়। এ গোবর কেঁচো বেশি খায় তাই সারও বেশি হয়। আমার কৃষি কাজে এ সার ব্যবহার করে অধিক পরিমাণে ফসল পাচ্ছি। যে কারণে আমি একজন স্বাবলম্বী ও সফল কৃষকে রুপান্তরিত হতে পারছি।

এ বিষয়ে নলছিটি উপজেলা কৃষি অফিসার সানজিদ আরা শাওন বলেন, পর্যায়ক্রমে চাড়ির সংখ্যা বৃদ্ধি করে আসছেন কৃষক রেজাউল,  এখন তার চাড়ির সংখ্যা প্রায় ২০ টি। সেখানে প্রায় পঞ্চাশটি চাড়ির পরিমান গোবর রাখা যায়। পাশাপাশি তিনি কেচো সরবরাহ করেন। 

তিনি আরও বলেন, নলছিটি উপজেলা দপদপিয়া ব্লকের উপসহকারী কৃষি অফিস অত্র উপজেলায় আধুনিক প্রযুক্তি সম্প্রসারনের লক্ষে প্রকল্পের মাধ্যমে মোঃ রেজাউল কে ভার্মি কম্পোস্ট সার উৎপাদনে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। তার দেখাদেখি এখন এই গ্রামের অনেকেই এই সার উৎপাদন ও ব্যবহার করছেন বিধায় আমরা গ্রামটিকে ভার্মি গ্রাম হিসেবে নামকরণ করেছি। এই ধরনের উদ্যোক্ত্যাদের উৎপাদিত সার কৃষি অফিস ক্রয় করছে। আগামীতেও এই কার্যক্রম চলমান থাকবে। 

অত্র ব্লকের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ জাহিদুল ইসলাম বলেন, এই সার উৎপাদন এবং  ব্যবহারকারীদের উৎসাহিত করতে উৎপাদনকারীদের নিকট হতে কেঁচো সার ক্রয় করা হয়। আর এই সার বিভিন্ন প্রদর্শনীতে বিনামূল্যে কৃষকদের মধ্যে বিতরণ করা হয়।

তিনি আরও বলেন, তার দেখাদেখি এখন ওই এলাকার টুলু বেগম, জামাল, রায়হান, রশিদ রাড়ি, মুরাদ হোসেন, কালাম সহ প্রায় ৩০টি পরিবার মডেল ভার্মি কম্পোস্ট সার (কেঁচো সার) উৎপাদন করে নিজেদের জমিতে ব্যবহার করছেন, এছাড়াও এই সার কৃষকের নিকট থেকে বরিশালের সারের দোকান ও কৃষি অফিস ক্রয় করে থাকেন।

বর্ণ টিভি